যে কারণে আন্দোলন স্থগিত করলেন ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা

যে কারণে আন্দোলন স্থগিত করলেন ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা

 ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে পদবঞ্চিত ও প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া নেতারা তাদের আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করেছেন। তাদের দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাসে রবিবার দিবাগত রাত ১টার দিকে তারা আন্দোলন স্থগিত করেন বলে গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন গত কমিটির প্রচার সম্পাদক ও আন্দোলনকারী সাঈফ বাবু।

তিনি বলেছেন, আমাদের দাবি মানা হয়েছে, তাই আমরা আন্দোলন স্থগিত করেছি। আমাদের দাবি ছিল, বিতর্কিতদের কমিটি থেকে বাদ দিয়ে যোগ্যদের স্থান দিতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আমাদের সাক্ষাৎ করিয়ে দিতে হবে। এছাড়াও দুটি হামলার ঘটনায় অভিযুক্তদের বিচার করতে হবে।
জানা গেছে, ছাত্রলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে পদবঞ্চিত ও প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের ওপর হামলার অভিযোগ, আর নেতাদের কাদা ছোঁড়াছুড়ি বক্তব্যকে কেন্দ্র করে কয়েকদিন ধরেই আলোচনায় সংগঠনটি। এরপরই রবিবার পদবঞ্চিতদের একটি প্রতিনিধি দল আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর কার্যালয়ে দলের শীর্ষ চার নেতার সঙ্গে বৈঠক করেন। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাম্মেল হক, বাহাউদ্দিন নাছিম, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মোল্লা আবু কাওসার।

আন্দোলনকারীদের পক্ষে ছিলেন গত কেন্দীয় কমিটির প্রচার সম্পাদক সাঈফ বাবু, জসীম উদ্দীন হলের সাধারণ সম্পাদক শাহেদ খান, ছাত্রলীগের রোকেয়া হলের সভাপতি বিএম লিপি আক্তার, বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হলের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা পারভীন, শামসুন নাহার হলের সভাপতি নিপু ইসলাম তন্বী, ডাকসুর সদস্য তিলোত্তমা সিকদার, বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হলের সভাপতি শ্রাবণী শায়লা।

বৈঠক শেষে রাজু ভাস্কর্যে এসে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি হিসেবে মোল্লা কাউছারের নেতৃত্বে ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন এবং সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সভাপতি সনজিৎ চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন আন্দোলনকারীদের সঙ্গে দেখা করে কর্মসূচি প্রত্যাহারের আহ্বান জানান।

কয়েক ঘণ্টার বৈঠক শেষে গভীর রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যে গিয়ে নবগঠিত কমিটি থেকে বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়নের আশ্বাস দেন ছাত্রলীগ সভাপতি। তিনি বলেন, বিতর্কিতদের ব্যাপারে আরও অনুসন্ধান করা হবে। প্রমাণ পাওয়া গেলে তার পদ বাতিল করে সেখানে ত্যাগী অন্যান্যদের মূল্যায়ন করা হবে।

এ সময় মধুর ক্যান্টিন ও টিএসসিতে পদবঞ্চিতদের ওপর হামলার ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত ও দোষীদের বিচারের আশ্বাস দেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ যে মান অভিমান ছিল তা কেটে গেছে।


সৌজন্যে : বিডি-প্রতিদিন