ভারতের নির্বাচনী প্রচারণা ইস্যুতে ফেরদৌসকে যা বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ভারতের নির্বাচনী প্রচারণা ইস্যুতে ফেরদৌসকে যা বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

খবর ডেস্ক :: ভারতের লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের এক প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেওয়া বাংলাদেশি চিত্রনায়ক ফেরদৌসকে নিয়ে ভারত যে ধরণের প্রতিক্রিয়া দেখিয়ে তা অতিরিক্ত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। তবে প্রচারণায় যাওয়াটা দুঃখজনক বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এ বিষয়ে বুধবার রাতে কনস্যুলার কর্প অব বাংলাদেশ (সিসিবি) আয়োজিত অনুষ্ঠানের আগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন বলেন, ‘ভারতীয়রা এত স্ট্রং রিঅ্যাক্ট করেছে, তা–ও আমার কাছে বেশি লাগল। রিঅ্যাকশনটা একটু বেশি হয়ে গেছে। উনি (ফেরদৌস) তার বন্ধুর জন্য গিয়ে ক্যাম্পেইন করেছেন। তবে সেটি দুঃখজনক।
তবে এ বিষয়ে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে এখনো বাংলাদেশকে কিছু জানানো হয়নি বলেও জানান মন্ত্রী।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ এপ্রিল পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী কানাইয়ালাল আগরওয়ালের সমর্থনে একটি প্রচারণায় অংশ নেন ফেরদৌস। হুড খোলা গাড়িতে করে অভিনেতাকে সাথে নিয়ে রোড শো করেন কানাইয়ালাল। ফেরদৌসের সাথেই একই গাড়িতে ছিলেন টালিগঞ্জের অভিনেতা অঙ্কুশ ও অভিনেত্রী পায়েল সরকার। যা বিতর্ক তৈরি হলে ভুল স্বীকার করে দুঃখপ্রকাশ করে চিত্রনায়ক ফেরদৌস বলেন, বাংলার প্রযোজক, পরিচালক বা অভিনেতা বন্ধুদের সাথে একটা সুমধুর সম্পর্কও রয়েছে। আর সেই সূত্র থেকেই তিনি ওই প্রচারণায় অংশ নিয়েছিলেন।

তারপরও একজন বিদেশি নাগরিক হয়ে অন্য দেশের নির্বাচনে অংশ নেওয়ার কারণে ভিসা আইনে ফেরদৌসের বিজনেস ভিসা বাতিল করে ভারত। একই সঙ্গে তার বিরুদ্ধে নোটিশ জারি করে দ্রুত ভারত ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া এবং কালো তালিকাভুক্ত করে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। সৌজন্যে: বিডি-প্রতিদিন