বাড়ছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে সেবামূল্য পরিশোধ

বাড়ছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ে সেবামূল্য পরিশোধ

মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে সেবামূল্য পরিশোধ ক্রমেই জনপ্রিয় হচ্ছে। নগদ টাকা ছাড়াই সেবামূল্য পরিশোধ কার্যক্রম জোরদার করতে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের উদ্যোগ সফল হতে যাচ্ছে।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে সেবামূল্য পরিশোধ করা হয়েছে ৪২৯ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। আগের বছর একই সময়ে পরিশোধ করা হয়েছিলো ১১৫ কোটি ৪৩ লাখ টাকা।

বর্তমানে আর্থিক সেবার মাধ্যমে অনলাইনে কেনাকাটা, রাইড শেয়ারিংয়ের মূল্য পরিশোধ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের টিউশন ফি, বিদ্যুৎ বিল ছাড়াও অনেক প্রতিষ্ঠান কর্মীদের বেতন দিচ্ছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে।

মোবাইল ব্যাংকিং সেবা আরো জনপ্রিয় করতে কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে সেবামূল্য পরিশোধের সঙ্গে সঙ্গে ক্যাশব্যাক অফারও দিচ্ছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ১১৫ কোটি, মার্চ মাসে ১২৩ কোটি, এপ্রিল মাসে ১৭৭ কোটি, মে মাসে ২৭৭ কোটি, জুন মাসে ৩০২ কোটি, জুলাই মাসে ২০৬ কোটি, আগস্ট মাসে ৩৩৫ কোটি, সেপ্টেম্বর মাসে ২৭৮ কোটি, অক্টোবর মাসে ৩২৫ কোটি, নভেম্বর মাসে ৩৪২ কোটি, ডিসেম্বর মাসে ৪২৫ কোটি টাকা মার্চেন্ট হিসাবে পরিশোধ করা হয়েছে।

চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে ৪০৫ কোটি ও ফেব্রুয়ারি মাসে ৪৩০ কোটি টাকার সেবামূল্য পরিশোধ করেছেন মোবাইল ব্যাংকিংয়ের গ্রাহকরা। এক বছরের ব্যবধানে পরিশোধ বেড়েছে ৩৭২ শতাংশ।

বর্তমানে ১ লাখের বেশি হোটেল, অনলাইন মার্কেট, সুপার শপ, ফ্যাশন হাউজে মার্চেন্ট পরিশোধ সুবিধা চালু রয়েছে। এরমধ্যে ৮০ হাজার মার্চেন্ট নম্বরই বিকাশের। এই সেবা দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে। ২০১৭ সালে বিকাশের মার্চেন্ট/এজেন্ট ছিলো ৫০ হাজার। এক বছরের ব্যবধানে তা বেড়েছে ৬০ শতাংশ।

এ বিষয়ে বিকাশের হেড অব কর্পোরেট কমিউনিকেশন সামসুদ্দিন হায়দার ডালিম বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্যাশলেস লেনদেন ব্যবস্থা বাস্তবায়নের অংশ হিসেবে সরকারি-বেসরকারি সব ধরনের সেবামূল্য মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পরিশোধে কাজ করে যাচ্ছে বিকাশ। এটি দিন দিন জনপ্রিয় হচ্ছে।

এ বিষয়ে মীনা বাজারের প্রধান অর্থনৈতিক কর্মকর্তা রাহি রায়হান বলেন, এক বছর আগেও মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে মূল্য পরিশোধ করতেন হাতেগোনা কিছু গ্রাহক। বর্তমানে তাদের মোট বিক্রির ৬ দশমিক ৫ শতাংশ পরিশোধ হচ্ছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে। কার্ডের মাধ্যমে পরিশোধ করছেন ৩২ শতাংশ গ্রাহক।

কিন্তু গত এক বছর ধরে দিন দিন মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পরিশোধ ক্রমেই বেড়েছে।

জানতে চাইলে শিওর ক্যাশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা শাহাদত খান বলেন, মানুষ বেশিরভাগ টাকা পাঠানো এবং গ্রহণ করার কাজটি করছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে। সম্প্রতি আমরা দেখছি কিছুটা পরিবর্তন এসেছে।

এখন মানুষ বিভিন্ন ধরনের সেবামূল্যও পরিশোধ করেছে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে। মোবাইল ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলো শিল্পের প্রসারে বিভিন্ন ধরনের নতুন নতুন সেবা উদ্ভাবনের চেষ্টা করছে বলেও জানান শাহাদত খান । সৌজন্যে : বাংলানিউজ ২৪