আদালতে তোলা হচ্ছে হিরো আলমকে

আদালতে তোলা হচ্ছে হিরো আলমকে

স্ত্রীকে পিটুনি ও যৌতুক দাবি করার মামলায় গ্রেফতার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আলোচিত চরিত্র বগুড়ার আশরাফুল আলম ওরফে হিরো আলমকে আদালতে তোলা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বগুড়ার অতিরিক্ত চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শাহরিয়ার তারিকের আদালতে তার বিষয়ে শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

বগুড়া সদর থানার এসআই ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আবদুর রহিম সমকালকে এতথ্য নিশ্চিত করেছন।

তিনি জানান, হিরো আলমকে দুপুরে আদালতে তোলা হবে। আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানোর আবেদন করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে জামিন বা রিমান্ডের আবেদন হয়নি।

কোর্ট ইনস্পেক্টর আবুল কালাম এ বিষয়ে জানান, থানা থেকে আদালতে পাঠানো হচ্ছে হিরো আলমকে। আদালত বাকি ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

এর আগে বুধবার রাতে বগুড়া সদর থানার সামনে থেকে গ্রেফতার হন মিউজিক ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ব্যাপক আলোচনায় আসা বগুড়ার কেবল অপারেটর ব্যবসায়ী হিরো আলম।

গত একাদশ জাতীয় সংসদে নির্বাচনে স্বতন্ত্রভাবে বগুড়ায় প্রার্থী হয়েছিলেন তিনি। এ নিয়েও আলোচিত হন হিরো আলম।

বুধবার রাতে সদর থানার ওসি এসএসম বদিউজ্জামানও সমকালকে বলেন, স্ত্রীকে পিটুনি ও যৌতুকের দাবির মামলায় রাতে থানার সামনে থেকে হিরো আলমকে গ্রেফতার করা হয়।

অভিযোগ উঠেছে, পরকীয়া ও দ্বিতীয় বিয়ের প্রতিবাদ করায় স্ত্রীকে পিটিয়ে আহত করেছেন হিরো আলম। এ ঘটনায় তার স্ত্রী সাবিয়া আক্তার সুমি (২৮) আহত হয়ে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

এদিকে হিরো আলমের অভিযোগ, শ্বশুরবাড়ির লোকজন তাকে মারধর করে বাড়ি থেকে ৫ লাখ টাকা লুটে নিয়েছে। উভয় পক্ষই থানায় অভিযোগ করেছে।

বুধবার হিরো আলমের স্ত্রী সুমি অভিযোগ করে বলেন, হিরো আলম ঢাকায় দ্বিতীয় বিয়ে করেছেন। এ কারণে বগুড়ায় থাকা আমার ও সন্তানের কোনো খবর রাখেন না। সংসারের খরচ দেন না। এর প্রতিবাদ করায় আগেও আমাকে শারীরিকভাবে নির্যাতন করেছেন তিনি।

সুমি জানান, দুই মাস পর গত মঙ্গলবার রাতে হিরো আলম বগুড়া শহরতলীর এরুলিয়া গ্রামে নিজ বাসায় আসেন। বাসায় ফেরার পর থেকে বিছানায় শুয়ে একটানা তিন ঘণ্টা মোবাইলে ঢাকার এক নারীর সঙ্গে কথা বলেন। এর প্রতিবাদ করলে তাকে মারধর করেন আলম। খবর পেয়ে সুমির বাবা ও আত্মীয়রা গিয়ে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

হিরো আলমের শ্বশুর সাইফুল ইসলাম বলেন,  আলম বেশ কিছুদিন ধরে আমার মেয়েকে নির্যাতন করে আসছিল। এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর সুমিকে আবারও নির্যাতন করে। খবর পেয়ে মেয়ের বাড়িতে গিয়ে ওকে উদ্ধার করে রাতেই হাসপাতালে ভর্তি করি। সুমির মাথার পেছনে রক্তাক্ত জখম হয়েছে।

এ ঘটনায় তিনি হিরো আলমের বিরুদ্ধে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেন, হিরো আলম দীর্ঘদিন ধরে ২ লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে আসছিল। যৌতুকের জন্য সে তার স্ত্রীকে মারধর করত।

এদিকে সুমিকে মারধরের খবর পেয়ে শ্বশুরবাড়ির লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে হিরো আলমকেও মারধর করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় হিরো আলম তার শ্বশুর, স্ত্রীসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে বগুড়া সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, স্ত্রীর সঙ্গে দাম্পত্য কলহের জের ধরে মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে তার শ্বশুর সাইফুল ইসলাম ও স্ত্রী সাদিয়া বেগম সুমিসহ পাঁচব্যক্তি বাড়িতে এসে তাকে কাঠ দিয়ে মারধর করে। এরপর তার বাসা থেকে ৫ লাখ টাকা লুট করে নিয়ে যায়।

বগুড়া সদর থানার এসআই আব্দুর রহিম বুধবার দুপুরে জানান, মঙ্গলবার রাতে হিরো আলম থানায় হাজির হয়ে তাকে মারধর করা হয়েছে উল্লেখ করে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। বুধবার সকালে তিনি ঘটনাস্থলে যান। সেখানে গিয়ে জানতে পারেন, হিরো আলম নিজেও তার স্ত্রীকে মারধর করেছেন। এ কারণে তার স্ত্রী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ ঘটনায় তার শ্বশুর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন

 

সৌজন্যেঃ সমকাল