পিয়ার পোশাকেই বংশের পরিচয়!

পিয়ার পোশাকেই বংশের পরিচয়!

জান্নাতুল ফেরদৌস পিয়া। পুরো নামের তিনটি শব্দের মতো ক্যারিয়ারও প্রতিফলিত হচ্ছে তিন জায়গায়। অর্থাৎ বড় পর্দা, ছোট পর্দা এবং র‍্যাম্প- এই তিন প্ল্যাটফর্মেই পা রেখেছেন এই লাস্যময়ী। তবে মডেলিংয়ে বেশ সরব হলেও অভিনয়ে অনেকদিন দেখা যায় না তাকে। ভক্তদের জন্য খুশির খবর হলো প্রায় দেড় বছর পর ৭ পর্বের ঈদ ধারাবাহিকে অভিনয় করলেন পিয়া। একটি বেসরকারি স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচারিতব্য এই নাটকটির নাম 'পোশাকেই বংশের পরিচয়'।

সাজিন আহমেদ বাবুর রচনা ও পরিচালনায় নাটকে আরও রয়েছেন মোশাররফ করিম ও ইরেশ যাকের। ইতোমধ্যে ক্যামেরা ক্লোজ হয়েছে নাটকটির। ঈদের দিন থেকে টানা ৭ দিন প্রচারিত হবে এটি।

বাংলাদেশ প্রতিদিনকে পিয়া বলেন, ঈদের নাটকে কাজ করার মজাই আলাদা। আর বাড়তি বোনাস হিসেবে যোগ হয়েছে মোশাররফ করিম ও ইরেশ যাকের ভাই। বলতে পারেন, মজার একটি কাহিনী নিয়ে ধারাবাহিকটি নির্মিত। এখনই বিস্তারিত বলে আগ্রহটা নষ্ট করতে চাই না। দর্শকরা নাটকটি দেখে আনন্দ পাবেন এটাই প্রত্যাশা। এছাড়া মোশাররফ করিমের সঙ্গে আরও একটি নাটকে অভিনয় করতে যাচ্ছেন বলেও জানান পিয়া।

২০০৭ সালে মিস বাংলাদেশ নির্বাচিত হন পিয়া। মূলত এরই মাধ্যমে মিডিয়ায় বিচরণ শুরু পিয়ার। ১৯ দেশের প্রতিযোগীকে হারিয়ে ২০১৩ সালে 'মিস ইন্ডিয়ান প্রিন্সেস ইন্টারন্যাশনাল' নির্বাচিত হন খুলনার মেয়ে পিয়া।  রেদওয়ান রনির হাত ধরে ২০১২ সালে চলচ্চিত্রে অভিষেক ঘটে তার। জাতীয় পুরস্কার পাওয়া 'চোরাবালি', 'দ্যা স্টোরি অব সামারা', 'গ্যাংস্টার রির্টান'সহ বেশ কয়েকটি ছবিতে অভিনয় করেছেন। প্রথম বাংলাদেশি মডেল হিসেবে জনপ্রিয় ফ্যাশন ও লাইফস্টাইল সাময়িকী 'ভোগ'-এর প্রচ্ছদেও দেখা গেছে পিয়াকে।

পিয়া ছোটবেলা থেকে স্বপ্ন দেখতেন আইনজীবী হওয়ার। এরইমধ্যে লন্ডন কলেজ অব লিগ্যাল স্ট্যাডিস (এলসিএলএস) থেকে গ্রাজুয়েশন সম্পন্ন করেছেন পিয়া। মডেলিং ও অভিনয়ের পাশাপাশি নিজের ‌'ল‌‌' প্রাকটিস এবং ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি।