কোরবানির বাজার অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করছেন তারেক

কোরবানির বাজার অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করছেন তারেক

খবর ডেস্ক : পবিত্র ঈদুল আযহা অর্থাৎ কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে নতুন করে ষড়যন্ত্রে মেতেছেন লন্ডনে পলাতক বিএনপি নেতা তারেক রহমান। এবার দেশি পশুবাজার ধ্বংস করে খামারিদের সারা বছরের বিনিয়োগ এবং প্রত্যাশায় পানি ঢেলে সরকারকে চাপে রাখার কৌশলে মেতেছেন পলাতক এই নেতা।

সূত্র বলছে, দেশে চাহিদার তুলনায় পর্যাপ্ত কোরবানির পশু মজুদ থাকার পরও ষড়যন্ত্র করে ঈদের আগে ভারত ও মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে অবৈধ পথে পশু ঢুকিয়ে বাজার নষ্ট করে খামারি ও সাধারণ মানুষদের সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার তৈরির অপচেষ্টা করছেন তারেক।

লন্ডন বিএনপির গোপন সূত্রে জানা যায়, দেশকে অস্থিতিশীল করার প্রতিটি পাঁয়তারায় ধরা খেয়েছেন তারেক। দেশের মানুষ দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে তারেকের প্রতিটি ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে সমর্থন দিয়েছে। সরকার পতনের সব আন্দোলনে রসদ জুগিয়েও শূন্য হাতে ফিরতে হয়েছে তাকে। দেশবাসী বিএনপি-জামায়াতের স্বদেশ বিরোধী এজেন্ডাগুলো বাস্তবায়ন করতে দেয়নি। সরকারের উপর আস্থা রেখে উন্নত বাংলাদেশ স্বপ্ন দেখছে দেশবাসী। বিএনপি-জামায়াত আজ তাদের ঘৃণ্য অপকর্মের জন্য চরমভাবে উপেক্ষিত এবং ঘৃণিত। তাই ষড়যন্ত্রের একাধিক মিশনে ব্যর্থ হয়ে শেষ পর্যন্ত কোরবানির মতো ধর্মীয় বিষয়েও অপরাজনীতির চেষ্টা করছেন তারেক। সূত্র বলছে, দেশীয় পশুর বাজার ধ্বংস করার জন্য গোপনে ভারত এবং মিয়ানমারের বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী চোরাকারবারীদের সাথে গোপনে যোগাযোগ করে ঈদের আগে বাংলাদেশে কোরবানির পশু ঢুকিয়ে দেশীয় খামারিদের ব্যবসা ধ্বংস করার জন্য অনুরোধ করেছেন। এই চোরাই বাণিজ্যে সহায়তার জন্য প্রশাসনের সাথে যোগাযোগ করার জন্য বিএনপির তিনজন সিনিয়র নেতাকে দায়িত্ব দিয়েছেন তারেক। এই চোরাই ব্যবসায় যা লাভ হবে তার ১৫ শতাংশ লভাংশ দিতে হবে তারেককে। সূত্র বলছে, দেশের সাধারণ খামারিদের সারা বছরের পরিশ্রম ও স্বপ্নে পানি দিয়ে সরকারের উপর দায় চাপিয়ে একটি সরকার বিরোধী আন্দোলনের স্বপ্ন দেখছেন পলাতক এই নেতা। সাধারণ খামারিরা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে, পুঁজি হারিয়ে বাজার ধ্বংসের জন্য সরকারকে দায়ী করে রাস্তায় নেমে আন্দোলন করবে। আর এই সুযোগ নিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করবে বিএনপি। সাধারণ মানুষ রাস্তায় নেমে দেশকে অচল করে দেবে এবং বিএনপি এই সুযোগে ক্ষমতা দখলের সর্বাত্মক চেষ্টা করবে।

ষড়যন্ত্রের এই বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, আমরা এরকম একটি ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সংবাদ পেয়েছি। আমাদের দেশীয় শিল্পকে ধ্বংস করার জন্য একটি মহল বিদেশ বসে কুপরিকল্পনা করছে। তবে আমরা সতর্ক আছি। দেশের অর্থনীতি ধ্বংস হতে আমরা দেব না। কোরবানির বাজার স্থিতিশীল রাখার জন্য সব ধরণের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।