সমুদ্র সৈকতে ভেসে এলো মৃতের 'রহস্যময়' মুখোশ!

 সমুদ্র সৈকতে ভেসে এলো মৃতের 'রহস্যময়' মুখোশ!

ইনকা সভ্যতা। প্রাচীন যে সভ্যতার সঙ্গে সবসময় জড়িয়ে রয়েছে রহস্য। সেই সময়েরই এক মুখোশ নিয়ে তৈরি হল নতুন রহস্য। মনে করা হচ্ছে, প্রাচীন এই মুখোশ থেকে খোঁজ মিলতে পারে প্রচুর গুপ্তধনের।

ফ্লোরিডার একটি সমুদ্র সৈকতে মিলল এই মুখোশটি। প্রথমে অনেকেই ভেবেছিলেন এটা কি কোন মহাকাশ সংক্রান্ত বস্তু। কারণ একদম অন্যরকম দেখতে এটি। পরে জানা যায়, পেরুর ইনকা সভ্যতারই একটি ‘ফিউনারেল মাস্ক’ বা মৃতের মুখোশ এটি। মৃতের সঙ্গেই এই মুখোশ দেওয়া হত দেহ সমাধিস্থ করার সময়। এই মুখোশ কীভাবে এলো এই সমুদ্র সৈকতে এ নিয়ে শুরু হয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনা।
গত ১১ বছর ধরে মাইক টোরেজ নামে এক অধ্যাপক এই জাহাজটির খোঁজ করছিলেন। সেই খোঁজ করতে গিয়েই সমুদ্র সৈকতে ভেসে আসা এই মুখোশের সন্ধান মেলে। তিনি বলেন, কিউবা থেকে স্পেন যাওয়ার পথে ১৭১৫ সাল নাগাদ স্পেনের একটি জাহাজ ডুবে যায় ফ্লোরিডার মেলবোর্ন সমুদ্র সৈকতের কাছে। প্রাক-কলম্বীয় যুগের একটি মুখোশ এটি। তবে এটিকেই ‘রিচেস্ট আর্কিওলজিক্যাল ডিসকভারি’ বলেও উল্লেখ করেছেন অনেকেই।

এই মুখোশের মতোই আরও বেশ কিছু প্রাচীন আমলের সামগ্রী সমুদ্র সৈকতের আশপাশেই রয়েছে বলেই দাবি করেন স্থানীয় প্রত্নতত্ত্ববিদরা। তিনিই বলেন, প্রায় ৪০০-৬০০ কোটি ডলারের গুপ্তধন থাকার সম্ভাবনা। কয়েকটি প্রাচীন পোশাকের অংশ মিলেছে এই সৈকতের কাছেই।

৮০০ বছর তো বটেই, এই মুখোশের বয়স আরও বেশি হতে পারে একটি সাক্ষাৎকারে জানান এই প্রত্নতত্ত্ববিদ-অধ্যাপক। ওই সমুদ্র সৈকতের আশপাশে আরও বেশ কিছু মূল্যবান প্রত্নতাত্ত্বিক সামগ্রী মিলতে পারে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

প্রত্নতত্ত্ববিদদের অপর অংশের দাবি, এটি ইনকা সভ্যতারও আগে কোনও প্রাচীন সভ্যতার প্রত্নতাত্ত্বিক সামগ্রী। এমনকি এটির বয়স প্রায় ১০ হাজার থেকে ১২ হাজার তো বটেই, দাবি করেছেন কেউ কেউ।

প্রত্নতত্ত্ববিদদের অপর অংশের দাবি, এটি ইনকা সভ্যতারও আগে কোন প্রাচীন সভ্যতার প্রত্নতাত্ত্বিক সামগ্রী। এমনকি এটির বয়স প্রায় ১০ হাজার থেকে ১২ হাজার তো বটেই, দাবি করেছেন কেউ কেউ। তবে এখন পর্যন্ত সবচেয়ে প্রাচীন ‘ফিউনারেল মাস্ক’র বয়স ২৫০০ বছর। তাই এটি নিয়ে গবেষণা চলছে জোরকদমে। তবে এটি যে দক্ষিণ আমেরিকারই কোন প্রাচীন সভ্যতার ‘ফিউনারেল মাস্ক’ তা নিয়ে সন্দেহ নেই ইতিহাসবিদদের।