অনেস্টের ডিজ অনেস্ট কারবার

অনেস্টের ডিজ অনেস্ট কারবার

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালসহ জেলার ১১ হাসপাতালে আউট সোসিংয়ে নিয়োগে দেয়া ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান অনেস্ট সিকিউরিটি সার্ভিস লিমিটেড এর বিরুদ্ধে অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। নামে অনেস্ট হলেও কাজ কারবারে ডিজঅনেস্টে হিসেবে যাবর্তীয় কার্যক্রম পরিচালনা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে এই প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে। 

অভিযোগ উঠে সদর হাসপাতালসহ জেলার ১১ হাসটাতালে একটি সিন্ডিকেটের সাহায্যে প্রকাশ্যে দুর্নীতির মাধ্যমে ঝাড়–দার, ক্লিনার, পিয়ন, বাবুর্চি, ট্রলি, ডোম, নাইট গার্ড, মালি চালানোসহ চতুর্থ শ্রেণির মর্যদার কাজের জন্য এক বছর মেয়াদে ঠিকাদারের মাধ্যমে দরপত্র আহবান করে কর্মী নিয়োগ করে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি। 

প্রথম দরপত্রে ধলেশ্বরি সিকিউরিটি লি.মি. কাজ পেলেও তাদের দেওয়া হয়নি। পরে পুনদরপত্র করে অনেস্ট সিকিউরিটি সার্ভিস লিমিটেড নামের এই প্রতিষ্ঠানকে কাজ দেওয়া হয়। দ্বিতীয় দফা টেন্ডারেও দুর্নীতির আশ্রয় নেয়া হয়। অভিযোগ রয়েছে আউট সোর্সিংয়ে লোক নিয়োগে প্রতিজনের কাজ থেকেই ৫০ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকা ঘুষ নেওয়া হয়। স্বয়ং বিএমএ সুনামগঞ্জ জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ আউট সোর্সিংয়ে লোক নিয়োগে চরম অনিয়ম ও দুর্নীতি হয়েছে বলে তখন অভিযোগ করেছিলেন। এ ঘটনায় সচেতন জনতা মানববন্ধন করে ঘুষ বাণিজ্যের অভিযোগও করেছিলেন।

এদিকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালসহ জেলার ১১ হাসপাতালে আউট সোসিংয়ে নিয়োগ পাওয়া চতুর্থ শ্রেণির মর্যাদার কর্মীদের বেতন প্রদান করতে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের গরিমসিহ নানা অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। তিন মাসের বেতন প্রাপ্তির স্বাক্ষর নিয়ে এক মাসের বেতন প্রদান, ব্যাংককের একাউন্টের পরিবর্তে হেন্ডক্যাশে টাকা প্রদান, ঈদ বোনাস না দিয়ে ১৪ হাজার ৫০০ টাকার পরিবর্তে সর্বসাকোল্যে ১১ হাজার ৫০০ টাকা প্রদানে অভিযোগ পাওয়া যায়। 

রবিবার সকালে জেলা পরিষদের গেস্ট হাউজে বেতন নিতে আসা আউট সোসিং কর্মীদের প্রতিবাদের তুপের মুখে পড়েন অনেস্ট ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিনসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। প্রতিবাদী কর্মীদের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকেরা হুকি দিতেও দেখা যায়। তবে সাংকাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে বেতন প্রদানে অনিয়মের বিষয়টি ধামপাচাপা দিতে দেখা যায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের লোকদের। আউট সোসিং কর্মীদের প্রতিবাদের তুপের মুখে ন্যায্য বেতন বোনাস দিতে দেখা যায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে। এদিকে নিয়োগপত্র দিয়ে কৌতক ২০ শস্যা হাসপতালে দুই মাস কাজ আদায় করে নিলেও হেপী দেবনাথ নামে এক আউটসোসিং কর্মীকে বেতন দেয়নি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। তার স্থলে কাজ না করেই সদর হাসপাতালে নিয়োগ পাওয়া সিপা নামে এক কর্মী হেপীর বেতন বোনাস তুলে নেয়। 

আউটসোর্সিং নিয়োগকালীন সমেয় নানা অনিয়ম দুর্নীতি, বেতনভাতা প্রদানে গরিমসি করায় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সমালোচনা করেছেন ভোক্তভোগীসহ সচেতন মহল। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শর্তে একাধিক আউট সোসিং কর্মী অভিযোগ করে বলেন, লক্ষ টাকা ঘুষ দিয়ে চাকরি নিতে হয়েছে। সারা দেশে সকল আউট সোসিং কর্মীদের মাসে ১৪ হাজার ৫০০ টাকা ও ঈদ বোনাস দেয়া হলেও সকালের দিকে আমাদের মাত্র ১১ হাজার টাকা প্রদান করতে চাচ্ছিল ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। কিন্তু আমরা এ বিষয় নিয়ে প্রতিবাদ করায় সাংবাদিকদের উপস্থিতে তুপের মুখে টাকা দিতে বাধ্য হয় ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। আমাদের অনেককেই হুমকি দেয়া হয়েছে। চাকরি বাতিলের কথা বলেছে তারা। 

এ ব্যাপারে অনেস্ট সিকিউরিটি সার্ভিস লিমিটেড এর চেয়ার‌্যমান নাসির উদ্দিন সকল অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, টাকা প্রদানে কোনো অনিয়ম আমরা করিনি। কর্মীরা না বুঝে ঝামেলা করছিলেন। তবে পরিবেশ শান্ত করে সকল কর্মীদের ন্যায্য টাকা দেয়া হচ্ছে। নিয়োগে ঘুষ নেয়ার অভিযোগে তিনি বলেন, আউট সোসিং নিয়োগে আমার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কারো কাছ থেকে এক টাকাও নেয়নি। আমি তাদের এমন অভিযোগ এই প্রথম শুনছি।