Friday , June 23 2017
Home / আলোচিত খবর / মুখে কালো কাপড় বেধে সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদ
সাংবাদিক সমাজ

মুখে কালো কাপড় বেধে সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদ

খবর২৪: হরতালের সংবাদ সংগ্রহের সময় দুই সাংবাদিকের ওপর পুলিশি নির্যাতনের প্রতিবাদ জানাতে মুখে কাপড় বেধে মৌন সমাবেশ ও মানববন্ধন করেছে সাংবাদিক সমাজ। শনিবার বেলা ১১টার দিকে রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

বিএফইউজে সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, ডিআরইউয়ের সাবেক সভাপতি শাহেদ চৌধুরী, এটিএন নিউজের সিইও মুন্নি সাহা, নিউজনেক্সটবিডি ডটকমের ইলিয়াস খানসহ দুই শতাধিক সাংবাদিক এতে অংশ নেন।

২০ মিনিটের এ মৌন সমাবেশে সাংবাদিকরা মুখে কালো কাপড় বেধে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে ঘটনার প্রতিবাদ জানান।

এ সময় তাদের হাতে ‘মুক্ত সংবাদ ও সাংবাদিকতা চাই, মৌনতাই হোক প্রতিবাদ, কলম আর ক্যামেরা মাথা নত করে না, সাংবাদিকের উপর হামলার বিচার চাই’ ইত্যাদি স্লোগান লেখা প্ল্যাকার্ড ছিল।

সাংবাদিককে মারধরের কারণে দোষী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পুলিশ প্রশাসনের প্রতি দাবি জানান সাংবাদিক নেতারা।

দীর্ঘ এক ঘণ্টার এই প্রতিবাদ স্থলে এসময় সাংবাদিক নেতাসহ সিনিয়র সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

সাংবাদিক নেতা মঞ্জরুল আহসান বুলবুল বলেন, আমরা এতোমধ্যেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং পুলিশ প্রশাসনের নিকট দোষী পুলিশ সদস্যদের শাস্ত্রির দাবি জানিয়েছি। আমরা এর আগেও দেখেছি বাংলাদেশে সাংবাদিক হত্যার কোনো বিচার হয় না। এর জন্য আন্তোর্জাতিক অঙ্গনে বাংলাদেশে এক নাজুক অবস্থানে আছে।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কথা তীব্র সমালোচনা করে তিনি বলেন, আমি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য সরাসরি প্রত্যার করছি। তার বক্তব্য প্রত্যাহার করার দাবি জানান তিনি।

নেতারা আরো বলেন, রাজপথে দায়িত্বরত সাংবাদিকের উপর কোনো অন্যায় ছাড়ায় বেধরক পিটনি দেয়। এটা যদি হয় জনবান্ধব হওয়ার নমুনা। তাহলে আমাদের দুঃখ প্রকাশ করা ছাড়া আর কিছুই করা নেই। প্রধানমন্ত্রী যখন বলল, পুলিশকে জনবান্ধব হতে হবে। ঠিক তখনই পুলিশ সাংবাদিককে পেটালো।

তার পরেই সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বললেন, পুলিশ সাংবাদিকদের পেটায় না একটু ধাক্কাধাক্কি লাগে। কি অদ্ভুত এক রশিকতা। সমস্ত গণমাধ্যমে প্রচার করা হল কিভাবে পুলিশ সাংবাদিককে লাঠি পেঠা করছে। তার পরেও একজন মন্ত্রী কিভাবে বলেন যে পুলিশ সাংবাদিকদের পেটায় না। এর চেয়ে রশিকতা পৃথিবীতে আছে বলে মনে হয় না।

আরেক মন্ত্রী বললেন, এই ঘটনা আন্তোর্জাতিক ষড়যন্ত্র হয়েছে। মন্ত্রীর কথা ধরেই বলি, যদি আন্তোর্জাতিক ষড়যন্ত্র হয় তবে এই ঘটনার আন্তোর্জাতিক মানের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেন। সে তদন্ত কমিটিতে যারা শাস্তি পাবে তাদের শাস্তি দিন। তা না হলে আগামীতে “আমরা সিদ্ধান্ত নিব আমরা পুলিশের সংবাদ পরিবেশন করবো কি না।”

মানববন্ধন শেষে এ পর্যন্ত যত সাংবাদিক নির্যাতন হয়েছে, সেসব ঘটনার বিচারের দাবিতে আগামী ২ ফেব্রুয়ারি (বৃহস্পতিবার) কারওরান বাজারে সার্ক ফোয়ারায় মানববন্ধন কর্মসূচির ঘোষণা করা হয়।

এ সময় বিএফইউজে সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্য প্রত্যাখান করে বলেন, ‘আমরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এ ধরনের বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করি। তাকে এই বক্তব্য প্রত্যাহার করে নিতে হবে। কারণ, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এ ধরনের বক্তব্য পুলিশ-প্রশাসনকে সাংবাদিক নির্যাতনে উৎসাহ দেবে।’

শুক্রবার মৌলভীবাজারের শমসেরনগরে এক অনুষ্ঠানের পর দুই সাংবাদিক নির্যাতনের বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান কামাল বলেন, ‘দেখুন, সাংবাদিক নির্যাতন পুলিশে করে না। মাঝে মাঝে ধাক্কাধাক্কি লেগে যায়। শাহবাগে সেদিন এমন ঘটনাই ঘটেছে।’

গত ২৬ জানুয়ারি রামপাল প্রকল্প বাতিলের দাবিতে তেল-গ্যাস, খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ডাকা অর্ধদিবস হরতাল কর্মসূচিতে সংবাদ সংগ্রহের সময় পুলিশের লাঠিপেটার শিকার হন দুই সাংবাদিক। তারা হলেন- বেসরকারি টিভি চ্যানেল এটিএন নিউজের প্রতিবেদক কাজী ইহসান বিন দিদার ও ক্যামেরাপারসন আবদুল আলিম।

এ ঘটনায় শাহবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করা হয়েছে। সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে শাহবাগ থানার সহকারী উপ-পরিদর্শক (এএসআই) এরশাদকে।

রমনা বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মারুফ হোসেন সরদার জানান, এই ঘটনায় পুলিশের আরো ১২ সদস্যের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন রমনা বিভাগের এডিসি এডমিন নাবিদ কামাল শৈবাল, এডিসি রমনা আজিমুল হক ও এসি রমনা ইহসানুল হক। তাদের দুই কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে।

Check Also

ছাত্রীদের নগ্ন করে তল্লামি

ছাত্রীদের নগ্ন করে দেহ তল্লাশি!

খবর২৪: ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের একটি আবাসিক স্কুলে প্রায় ৭০ জন ছাত্রীকে নগ্ন করে তাদের দেহ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *