Thursday , July 27 2017
Home / আলোচিত খবর / কাজের সুযোগ বিজ্ঞাপন জগতেও
journalist

কাজের সুযোগ বিজ্ঞাপন জগতেও

ড. অর্ণব বন্দ্যোপাধ্যায় : সাংবাদিকতা ও গণজ্ঞাপন নিয়ে পড়লে কাজের সুযোগ নিয়মিতই বাড়ছে। সংবাদ মাধ্যম, জনসংযোগ-এ কী ধরনের কাজের সুযোগ রয়েছে, তা নিয়ে আমরা এর আগে আলোচনা করেছি। সাংবাদিকতায় শিক্ষকতার সুযোগ কতটা রয়েছে, তা নিয়েও অল্পবিস্তর আলোচনা হয়েছে।

এই ব্লগে প্রথমে বলবো বিজ্ঞাপন দুনিয়ায় কাজের সুযোগের বিষয়ে । ‘বিজ্ঞাপন’, গণ জ্ঞাপনের একটি উল্লেখযোগ্য দিক। প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠক্রমে বিজ্ঞাপন বিষয়টি রয়েছে। তাছাড়া পশ্চিমবঙ্গের বাইরে কিছু প্রতিষ্ঠানে শুধু বিজ্ঞাপন নিয়ে পড়ানো হয়। কোথাও কোথাও জনসংযোগের সঙ্গে পড়ানো হয়। এখন প্রশ্ন, বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে কাজের সুযোগ কী কী রয়েছে।

ভারত সরকারের বিজ্ঞাপন সংস্থা হল ডিএভিপি বা ডিরেক্টরেট অফ অ্যাডভার্টাইজিং অ্যান্ড ভিস্যুয়াল পাবলিসিটি। রেল ছাড়া প্রায় সব সরকারি সংস্থার বিজ্ঞাপন ডিএভিপি করে থাকে। এই সংস্থা বিজ্ঞাপন দিয়ে লোক নিয়োগ করে থাকে। রেলেরও নিজস্ব বিজ্ঞাপন বিভাগ রয়েছে। তারা নিজেরাই বিজ্ঞাপন তৈরি করে থাকে । সেখানও কাজের সুযোগ রয়েছে।

বিভিন্ন বেসরকারি বিজ্ঞাপন এজেন্সি রয়েছে। এরা অর্থের বিনিময়ে বিভিন্ন সংস্থার বিজ্ঞাপন তৈরি করে দেয়। সংবাদপত্র বা ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া হাউজগুলোরও বিজ্ঞাপন বিভাগ রয়েছে। সেখানেও লোক নিয়োগ করা হয়।

বিজ্ঞাপন সংস্থাগুলোয় বিভিন্ন ধরনের পদে লোক নিয়োগ করা হয়। আর্টিস্ট, ইলাসট্রেটর,প্ল্যানিং অ্যান্ড ডিজাইনার, বিজ্ঞাপন ম্যানেজার , বিজ্ঞাপন আধিকারিক প্রভৃতি নানা ধরনের কাজ রয়েছে বিজ্ঞাপন জগতে। এছাড়াও সেলস প্রমোশন, মাকেটিং-এর জন্যও লোক নিয়োগ করা হয়। ভিডিও এডিটিং ও ক্যামেরার কাজ জানা থাকলে অ্যাড ফিল্ম তৈরি করে ব্যক্তিগত উদ্যোগে বা সংস্থার সঙ্গে যুক্ত থেকে কাজ করা যায়।

বেসরকারি সংস্থায় চাকরির সুযোগ 

বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা বা NGO-তে মাস কমিউনিকেশন বা সোশাল ওয়ার্ক-এ ডিগ্রি করা ছাত্রছাত্রীদের কাজের সুযোগ রয়েছে। বিভিন্ন NGO –তে লিয়াজোঁ অফিসার নিয়োগ করা হয়,যাদের কাজ মূলত সংস্থার প্রচার , সংস্থার ব্র্যান্ড বা ভাবমূর্তি বাড়ানো এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রের সঙ্গে সংস্থার সংযোগ ঘটানো। NGO গুলো তাদের মুখপত্র বা কাজের খতিয়ানসহ ম্যাগাজিন বা নিউজলেটার প্রকাশ করে। এই সমস্ত নিউজ লেটারের সম্পাদক বা কপি এডিটরের কাজ করা যায়। এই সব ক্ষেত্রে পদের নাম যাই হোক না কেন ,প্রকাশনার পুরো দায়িত্ব নিতে হয়। কোয়ার্ক এক্সপ্রেস বা অ্যাডোব পেজমেকার,কোরেল ড্র, ফটো শপ প্রভৃতি সফটওয়্যারের মাধ্যমে কম্পিউটারের কাজে দক্ষতা থাকলে কাজ পেতে সুবিধা হয়।

NGO-গুলো Document preserve বা তথ্য সংকলনের জন্য বিভিন্ন প্রোজেক্ট কোঅর্ডিনেটর নিয়োগ করে। এই কাজগুলোও মাস কমিউনিকেশনের ছেলেমেয়েরা করতে পারে। এই সব ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট প্রজেক্টের বিভিন্ন খবর সংবাদপত্র থেকে কেটে সংরক্ষণ করতে হয়। খবর সম্পর্কে ভাল ধারণা থাকলে কাজের ক্ষেত্রে সুবিধা হয়। সংস্থাগুলো বিভিন্ন ধরনের তথ্যচিত্র তৈরি করে। সেই ক্ষেত্রে ক্যামেরার কাজ জানা থাকলে সুবিধা। ভিডিও এডিটিং জানাও অনেক ক্ষেত্রে আবশ্যিক হয়ে পড়ে। অ্যাডোব প্রিমিয়ার , সোনি ভেগাস প্রভৃতি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যারে কাজ শিখে রাখা দরকার। এখন অনেক জায়গায় ফাইনাল কাট প্রো সফটওয়্যারে এডিট হয়। তাই এফসিপি শিখে রাখলেও কাজের সুযোগ বাড়বে।

ফটোগ্রাফি, ভিডিওগ্রাফি, সাউন্ড এডিটিং,পেজ সেট আপ, ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রভৃতি ক্ষেত্রগুলিতে নানা কাজের সুযোগ নিয়ে আমরা আলোচনা করব পরের ব্লগগুলোয়।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান, সাংবাদিকতা ও গণজ্ঞাপন বিভাগ, বিজয়গড় জ্যোতিষ রায় কলেজ

Check Also

ছাত্রীদের নগ্ন করে তল্লামি

ছাত্রীদের নগ্ন করে দেহ তল্লাশি!

খবর২৪: ভারতের উত্তরপ্রদেশ রাজ্যের একটি আবাসিক স্কুলে প্রায় ৭০ জন ছাত্রীকে নগ্ন করে তাদের দেহ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *